Health Bangla

যে খাবারে বাড়ে শুক্রাণুর মান

যে খাবারে বাড়ে- তরল শুক্রাণুর কারণে বাবা হতে পারেন না অনেক । কিন্তু খাদ্যাভ্যাসে নিয়মিত বাদাম খাওয়ার অভ্যেস থাকলে পুরুষদের শুক্রাণুর গুণমান ও পরিমাণ বৃদ্ধি করে। সপ্রতি বিবিসি’র অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে আসে। গবেষণায় বলা হয়েছে, যে সকল পুরুষ দু’মুঠো করে কাজুবাদাম কিংবা অন্যান্য বাদাম ১৪ সপ্তাহ ধরে খেয়েছে তাদের শুক্রাণুর পরিমাণ ও গুণগতমান বেড়েছে।

গবেষকরা বলছেন, একটি স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্য তালিকা সন্তান জন্মদানের সম্ভাবনা বহুগুণে বাড়িয়ে তোলে। ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সের ১১৯ জন স্বাস্থ্যবান পুরুষদের দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছিলো। এর একটি দলকে প্রতিদিনের খাবারের সাথে ৬০ গ্রাম করে বাদাম দেয়া হতো। আর অন্য দলটির খাদ্যাভ্যাসে কোনরুপ পরিবর্তন করানো হয়নি, অর্থাৎ তারা আগে যা খেতেন তাই খাওয়ানো হতো। নতুন কোনো খাবার দ্বিতীয় দলটির জন্য সংযোজন করেননি গবেষকরা।

১৪ সপ্তাহ পর দেখা গেলো, যারা খাবার হিসেবে নিয়মিত ৬০ গ্রাম করে বাদাম খেয়েছিলো তাদের শুক্রাণুর পরিমান বেড়েছে। বৃদ্ধি পাওয়া প্যারামিটারের হারটি এমন ছিলো- কাউন্ট ১৪ শতাংশ, ভাইটালিটি ৪ শতাংশ, মটিলিটি(মুভমেন্ট) ৬শতাংশ, মরফোলোজি(শেপ এবং সাইজ) ১শতাংশ। উপরের সকল প্যারামিটার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর মানদণ্ড মেনে করা হয়েছে। গবেষকরা বলছেন, ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন বি সমৃদ্ধ খাবার সন্তান জন্মদানের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে। আর বাদামে এসব পুষ্টিগুণ যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে।

গবেষণা কর্মের প্রধান ডাঃ এলবার্ট সালাস হুএটোস বলেন, “একটি স্বাস্থ্যকর লাইফ স্টাইল বিশেষত স্বাস্থ্যকর খাবার সন্তান জন্মদানের হার বহুগুণে বাড়িয়ে তুলতে পারে।’’ গবেষণার প্রতিবেদনটি বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিত ইউরোপিয়ান সোসাইটি অব হিউম্যান রি-প্রোডাকশন এন্ড এম্ব্রাওজি এর বার্ষিক সভায় প্রকাশ করা হয়। গবেষণা থেকে আরও জানা যায়, প্রতি সাত জোড়া স্বামী-স্ত্রী এর মাঝে এক জোড়া’ই বন্ধ্যাত্ব সমস্যার ভুক্তভোগী। এই বন্ধ্যাত্ব পুরুষদের মধ্যেই বেশি। ৪০শতাংশ থেকে ৪৫ শতাংশ ক্ষেত্রেই পুরুষ দায়ী।

পরিমাণ বৃদ্ধি করে। সপ্রতি বিবিসি’র অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে আসে। গবেষণায় বলা হয়েছে, যে সকল পুরুষ দু’মুঠো করে কাজুবাদাম কিংবা অন্যান্য বাদাম ১৪ সপ্তাহ ধরে খেয়েছে তাদের শুক্রাণুর পরিমাণ ও গুণগতমান বেড়েছে।

গবেষকরা বলছেন, একটি স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্য তালিকা সন্তান জন্মদানের সম্ভাবনা বহুগুণে বাড়িয়ে তোলে। ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সের ১১৯ জন স্বাস্থ্যবান পুরুষদের দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছিলো। এর একটি দলকে প্রতিদিনের খাবারের সাথে ৬০ গ্রাম করে বাদাম দেয়া হতো। আর অন্য দলটির খাদ্যাভ্যাসে কোনরুপ পরিবর্তন করানো হয়নি, অর্থাৎ তারা আগে যা খেতেন তাই খাওয়ানো হতো। নতুন কোনো খাবার দ্বিতীয় দলটির জন্য সংযোজন করেননি গবেষকরা।

১৪ সপ্তাহ পর দেখা গেলো, যারা খাবার হিসেবে নিয়মিত ৬০ গ্রাম করে বাদাম খেয়েছিলো তাদের শুক্রাণুর পরিমান বেড়েছে। বৃদ্ধি পাওয়া প্যারামিটারের হারটি এমন ছিলো- কাউন্ট ১৪ শতাংশ, ভাইটালিটি ৪ শতাংশ, মটিলিটি(মুভমেন্ট) ৬শতাংশ, মরফোলোজি(শেপ এবং সাইজ) ১শতাংশ। উপরের সকল প্যারামিটার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর মানদণ্ড মেনে করা হয়েছে। গবেষকরা বলছেন, ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন বি সমৃদ্ধ খাবার সন্তান জন্মদানের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে। আর বাদামে এসব পুষ্টিগুণ যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে।

গবেষণা কর্মের প্রধান ডাঃ এলবার্ট সালাস হুএটোস বলেন, “একটি স্বাস্থ্যকর লাইফ স্টাইল বিশেষত স্বাস্থ্যকর খাবার সন্তান জন্মদানের হার বহুগুণে বাড়িয়ে তুলতে পারে।’’ গবেষণার প্রতিবেদনটি বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিত ইউরোপিয়ান সোসাইটি অব হিউম্যান রি-প্রোডাকশন এন্ড এম্ব্রাওজি এর বার্ষিক সভায় প্রকাশ করা হয়। গবেষণা থেকে আরও জানা যায়, প্রতি সাত জোড়া স্বামী-স্ত্রী এর মাঝে এক জোড়া’ই বন্ধ্যাত্ব সমস্যার ভুক্তভোগী। এই বন্ধ্যাত্ব পুরুষদের মধ্যেই বেশি। ৪০শতাংশ থেকে ৪৫ শতাংশ ক্ষেত্রেই পুরুষ দায়ী।